ইসরাইল-ফিলিস্তিন সংঘাত: যুদ্ধ নয় গণহত্যা

Posted: July 13, 2014 in ব্লগ
Tags: , ,

লিখেছেন জিয়া হাসান

ইসরায়েলি এবং পশ্চিমাদের নতুন অজুহাত শুনেছেন? সিরিয়াতে দেড় লক্ষ মানুষ যদি মারা যায়, তাহলে ১০০ থেকে ২০০ প্যালেস্টাইনিকে কেন মারা যাবেনা? শুনুন। কেন আমরা এই যুক্তির মধ্যে দিয়ে, ইঙ্গ-মার্কিন পশ্চিমা লিবারেল ভাবনার দেওলিয়াত্ত বুঝতে পারি।

প্রথমত। সিরিয়ার দুই পক্ষের মধ্যে যে যুদ্ধ সেইটা একটা যুদ্ধ। সেই খানে দুই পক্ষেই রয়েছে, শক্ত প্রতিপক্ষ। যাদের হাতে উভয়ের কাছে আছে, ট্যাঙ্ক, আর্মি এবং সামরিক যান বাহন।
কিন্তু, ইজরায়েল প্যালেস্টাইনের যে যুদ্ধ সেইটা কোন যুদ্ধ নয়। সেইখানে এক পক্ষে আছে, পৃথিবীর সব চেয়ে সর্বাধুনিক যুদ্ধাস্ত্রে সজ্জিত আর্মির মধ্যে একটা আর্মি, যার রয়েছে হেলিকপ্টার গান-শিপ, এফ১৬ বোমারু বিমান, ট্যাঙ্ক, আর্টিলারি এবং অপর পক্ষে আছে পাথর ছোড়া কিছু শিশু এবং তরুণ। নিজেকে রক্ষা করতে সম্পূর্ণ ভাবে অক্ষম এই জনগোষ্ঠীর আছে কিছু পাতাল দিয়ে পাচার করে আনা এক-৪৭ এবং কিছু বোমা, বারুদ আর কৃষি সার ব্যবহার করে হাতে তৈরি রকেট যা আকাশে ছুড়ে দিলে কোথায় পড়বে কেও বলতে পারে না। এবং এই রকেট দ্বারা ১০ বছরে ১০ জন ইজ্রায়েলিও মারা যায়নি। কিন্তু, ইজ্রায়েলিদের প্রিসিশান গাইডেড মিসাইল এবং অন্য অস্ত্র দিয়ে, ১০ বছরে ১০,০০০ জনের উপরে প্যালেস্টাইনি মারা গ্যাছে।

তাই আমরা যখন দেখি, একটা ট্যাঙ্কের সামনে একটা শিশু পাথর ছুড়ে মারছে এবং তাকে টার্গেট করে হত্যা করছে ইজ্রায়েলি শার্প-শুটার, এবং তারপরে আবার সেলফ ডিফেন্সের নাম দিয়ে প্যালেস্টাইনের হাসপাতাল, জনপদের ঘরবাড়ি গুড়িয়ে দেয়া হয় – আমরা দুই পক্ষের ক্ষমতার অসাম্য দেখে ক্ষুব্ধ হই।

তাই, একটা জনপদকে দখল করে তাদের একটা কন্সেট্রেশন ক্যাম্পের মধ্যে আটকে রেখে, এইটা সেইটা অজুহাত দিয়ে একটা জনপদের সকল ভূমি দখল করে, তাদের সামান্য প্রতিরোধের চেতনাকে ট্যাঙ্ক এবং মিসাইল দিয়ে গুড়িয়ে দিয়ে আবার নিজেকে আক্রান্ত দাবী করে বিশ্ব সিম্প্যাথি আদায় করে এবং নিজেকে লিবারেল দাবী করা পশ্চিমা মেডিয়ার সেইটাকে নির্লজ্জ ভাবে সমর্থন করার প্রোপাগান্ডাকে আমরা সিরিয়ার বিদ্রোহী এবং আসাদের বাহিনীর যুদ্ধের সাথে তুলনীয় মনে করি না।

যদি সাগর ব্লক না করে, তোমরা প্যালেস্টাইনকে তাদের অস্ত্র নিয়া আসার সুযোগ দিতে, তাদের নিজেদের আত্মরক্ষার অধিকারকে কেড়ে না নিতা এবং তারা যদি তোমাদের সাথে পাথরের বদলে যথাযোগ্য অস্ত্র দিয়ে সমভাবে লড়াই করার সুযোগ পেতো , তাহলে সিরিয়ার যুদ্ধের সাথে এই যুদ্ধ তুলনীয় হতো।

বছরের পর বছর ডায়ালগের নাম দিয়ে আশা জাগিয়ে তার আড়ালে চালিয়ে গ্যাছ প্যালেস্টাইনের সকল সমৃদ্ধ ভূমি দখল করেছো। এইটা সেইটা অজুহাত দিয়ে, সকল আলোচনাকে বাতিল করেছো। পিএলওর আব্বাস যখন আলাপ করতে চেয়েছে তখন বলেছো, আব্বাস সকল প্যালেস্টইনিদের প্রতিনিধিত্ব করে না। তাই ওর সাথে আলাপ করে কি হবে। এর পরে আব্বাস যখন হামাসের সাথে চুক্তি করেছে, তখন বলেছো হামাস সন্ত্রাসী সংগঠন। হামাসের সাথে যারা চুক্তি করে, তাদের সাথে আলাপ আমরা করি না।ফলে, সকল ধরনের শান্তি আলচনার পথ তোমরা বন্ধ করে রেখেছো। কিন্তু, আড়ালে প্যালসেটাইনের জনপদ দখল করে করে সেই খানে বানিয়েছে জনবসতি।

বছরের পর বছর পশ্চিমা হিপোক্রেসি দেখে ক্লান্ত প্যালস্টাইনিদের ক্ষোভ থেকে যখন বিস্ফোরণ হচ্ছে তখন তোমরা আনছো, সিরিয়ার গল্প। কোন দুটি লড়াই এক না। সিরিয়ার যুদ্ধে দেড় লক্ষ মানুষ মারা গ্যাছে বলে, ১০,০০০ মৃত্যু যদি গ্রহণযোগ্য হয়না। নাজিরা যদি বলতো, প্রথম বিশ্বযুদ্ধে দেড় কোটি লোক মারা গ্যাছে বলে, হলোকস্টে মারা যাওয়া ৬০ লক্ষ জিউ এর মৃত্যু গ্রহণযোগ্য, তোমরা কি সেইটা মানতা?

তোমাদের এই সব অজুহাত আমরা অনেক বছর ধরে দেখে যাচ্ছি। সাব্রা সাতিলার হত্যাকান্ডের পরেও তোমরা বিভিন্ন অজুহাত দিয়েছিলা। প্যালেস্টাইনের শিশুরা গুলি খেয়ে মরতে মরতে যখন ক্ষুব্ধ হয়ে সুইসাইড বম্বিং করলো সেইটাকেই নিষ্ঠুর ভাবে দমন করার সময় তোমরা দায় চাপিয়েছো প্যালেস্টাইনিদের উপরে- সেইটাও আমরা দেখেছি।সেই অজুহাতে তোমরা আরো হত্যা চালাইছো। বিশ্ব এমন কখনো দেখেনি যে, একটা খুনি এই ভাবে খুন করে, নিজেকে আক্রান্ত দায়ী করে।

বাস্তবতা হচ্ছে, তোমরা সকল ধরনের বিবেক বর্জিত সাইকোপ্যাথিক খুনি। এইটাই প্রথম এবং শেষ কথা। খুনির খুন করতে, কোন যুক্তি লাগেনা। তোমাদের কেন যুক্তি লাগছে?

আমার অনেক বাঙ্গালি বন্ধুকেও দেখছি, সিরিয়ার উদাহরণ টানছেন। আপনাদেরকে এবং আপনাদের পশ্চিমা বন্ধুদেরকে বলছি। হিপোক্র্যাসি বন্ধ করেন। অফ যান। প্যালেস্টাইনি বন্টুস্টানে বর্ণবাদ এবং খাঁচায় আটকে গণহত্যার প্রতিবাদ করুন, কোন ইফ কিন্তু বাট ছাড়া।

সূত্র: ফেসবুক স্ট্যাটাস

Advertisements

আপনার মন্তব্য লিখুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s