Posts Tagged ‘কাসসাম বিগ্রেড’

লিখেছেন জাহিদ রাজন

১৯৭৩ সালের আরব ইসরাইল যুদ্ধে ইসরাইলি সেনারা ট্যাঙ্ক নিয়ে অগ্রসর হল। তারা ভাবল যে মিশরের সেনারা যেহেতু সুয়েজ খাল অতিক্রম করে এসেছে তাই খুব বেশী ভারী অস্ত্র এখনো আনতে পারে নি। অতএব, ট্যাঙ্ক দিয়ে আক্রমণ করে মিশরের সেনাবাহিনীকে সহজেই পরাজিত করা যাবে। ইসরাইল ট্যাঙ্ক নিয়ে প্রায় বিনা বাধায় অনেকখানি সামনে চলে আসল। মিশরের সেনাবাহিনী অপেক্ষা করতে থাকল। যখন ইসরাইলি ট্যাঙ্ক কিছুটা কাছাকাছি রেঞ্জে আসল তখন মিশরের সেনাবাহিনী রাশিয়া থেকে আনা এন্টিট্যাঙ্ক মিসাইল ফায়ার করা আরম্ভ করল। পরের দিকে বেশ ভালভাবে সামলে উঠলেও প্রথমে এই এন্টিট্যাঙ্ক মিসাইলের বাধায় ইসরাইলের বেশ কিছু সেনা নিহত হল এবং ট্যাঙ্ক ধ্বংস হল। এ ঘটনায় ইসরাইল বেশ হতবাক হয়ে গিয়েছিল।

ইসরাইলের সাথে যুদ্ধে একটা জিনিস খেয়াল রাখা দরকার। ইসরাইলের একজন সেনা নিহত হওয়াটাকেও ইসরাইলিরা খুব গুরুত্ব সহকারে দেখে। নিরপেক্ষভাবে চিন্তা করলে ১৯৭৩ সালের আরব ইসরাইল যুদ্ধে ইসরাইলের পারফরম্যন্স ছিল অসাধারণ। মিশর এবং সিরিয়ার অতর্কিতে হামলার মুখোমুখি হয়েও তারা শেষ পর্যন্ত সিরিয়াকে বেশ ভালভাবেই কাবু করেছিল। সম্মিলিত আরব ফোর্স যুদ্ধে যোগ না দিলে হয়ত ইসরাইল দামেস্ক দখল করে ফেলত ।

মুখের কথা দিয়ে যুদ্ধে জয়ে চ্যাম্পিয়ন আনোয়ার সাদাত যতই যুদ্ধে বিজয়ের ঘোষণা দেন না কেন, আসলে মিশরের সেনাবাহিনীকেও চরম মূল্য দিতে হয়েছিল। তবে সাদাতের উদ্দেশ্য ছিল ইসরাইলের সাথে আলোচনা আরম্ভ করা। সাদাত সেটা করতে পেরেছিলেন। আর হাফেজ আল আসাদের জন্য এটা ছিল একটা ব্যক্তিগত ইগোর পরীক্ষা। কেননা ৬৭ সালের যুদ্ধে তিনি ছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এবং যুদ্ধে পরাজয়ের জন্য তাকে দায়ী করেছিল বাথ পার্টির মিলিটারি কমিটির সদস্যরা। (more…)

বিশ্লেষণ করেছেন জাহিদ রাজন

ইসরাইলের সিকিউরিটি বাহিনী শিন বেটের সাবেক প্রধান ইয়ুভাল ডিসকিন (Yuval Diskin) জার্মান প্রভাবশালী সাময়িকী ‘স্পাইজেল ( SPIEGEL)’ এর সাথে সাক্ষাৎকারে বলেছেন হামাস তিন সেটেলার অপহরণের সাথে সরাসরি জড়িত না। এমনকি হামাসের নেতারাও এ ঘটনায় প্রথম দিকে বেশ অবাক হন। কিন্ত ঘটনার সাথে সাথেই হামাস বিপদ বুঝতে পারে এবং তারা এবারে রকেট হামলা বন্ধের কোন চেষ্টা করেনি যেটা সাধারণত তারা অন্য সময়ে করে থাকে।

নেতানিয়াহু তাহলে কেন এই যুদ্ধে জড়ালেন ? সম্ভবত, নেতানিয়াহু ব্যক্তিগতভাবে এই যুদ্ধ চাননি। রাইট উইং যুদ্ধবাজদের চাপে পড়ে তাকে আসতে হয়েছে। এটা পরিষ্কার যে, ২০০৬ সালের লেবানন যুদ্ধের মতই এ গ্রাউন্ড ইনভেশন ইসরাইলের জন্য একটা বড় ভুল ছিল।

তীব্র অর্থনৈতিক সংকট এবং অবরোধের মুখে হামাসের জনপ্রিয়তা এমনিতেই কমে আসছিল বলে কিছু সাম্প্রতিক জরিপে উঠে এসেছে। এছাড়া সিরিয়া ইস্যুতে ইরানের সাথে সম্পর্কের অবনতি এবং মিশরে ব্রাদারহুডের পতন হামাসের জন্য ছিল বড় বিপর্যয়। তারা নিজেদের ৪০ হাজারেরও বেশী সরকারি কর্মচারীদের বেতন পর্যন্ত দিতে পারছিল না। এ অবস্থায় হামাস স্পষ্টতই ছিল দুর্বল এবং এ সংকট নিরসনে একেবারে মরিয়া । যে কোন মূল্যে তারা এ অবরোধের অবসান চাইছিল এবং এ জন্যে অনেক ছাড় দিয়ে ঐক্যমতের সরকারে এসেছিল। (more…)

86340_3গাজার পশ্চিম তীরে জনপ্রিয় হচ্ছে হামাস। ইসরাইলের বিরুদ্ধে ব্যাপক প্রতিরোধ গড়ে তুলে হামাস পশ্চিম তীরের অধিবাসীদের মন জয় করে নিচ্ছে।

মেহের আল নাদেন নামে একজন রাস্তা পরিস্কারকারী বলেন তিনি গাজা অবরোধের প্রতিবাদে ইসরাইলের তৈরি সব পণ্য কেনা বন্ধ করে দিয়েছেন।

‘অন্তত এটা তো আমরা করতে পারি’, পশ্চিম তীরের বাসিন্দা এই ফিলিস্তিনি তার হতাশা ব্যক্ত করে বলেন।

তিনি গাজায় ইসরাইলি বর্বরতার একজন প্রত্যক্ষ সাক্ষী।

মেহের আল নাদেন নিজেকে সাধারণ জনগণের একজন হিসেবে বর্ণনা করে বলেন, ‘আমরা এই শরণার্থী শিবিরে ৭০ বছর ধরে আছি। আর আমি আমার ছেলেকে হামাসকে দান করে দিয়েছি।’ (more…)

86349_2ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় ইসরাইলি বর্বর হামলায় নিহতের সংখ্যা সাতশ’ ছাড়িয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার সকালে গাজায় ইসরাইলি আগ্রাসনে আরো অন্তত ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে গত ১৭ দিনের ইসরাইলি আগ্রাসনে নিহতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৭২০ জনে।

প্রতি মুহূর্তই নিহতের সংখ্যা বাড়ছে।

ইসরাইলের বর্বর হামলায় ৪,৬০০ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন।

এছাড়া উদ্বাস্তু হয়ে জাতিসংঘের আশ্রয় কেন্দ্র ও খ্রিস্টানদের গির্জায় আশ্রয় নিয়েছেন লক্ষাধিক ফিলিস্তিনি। (more…)

86351_1গাজায় ইসলামপন্থী হামাস যোদ্ধাদের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ‘এক্সট্রেমলি ইম্প্রেসিভ’ বা চরম চিত্তাকর্ষক বলে মন্তব্য করেছেন ইসরাইলপন্থী সাবেক একজন বৃটিশ কমান্ডার।

তিনি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তা ইহুদিবাদী ইসরাইলের সামনে এবার কঠিন পথ। গাজায় আরো বহু ইসরাইলি সেনার প্রাণহানি ঘটতে পারে বলেও সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি।

জেরুজালেম পোস্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে কর্নেল (অব.) রিচার্ড কেম্প বলেন, ‘ হামাস ব্যাপক প্রতিরোধ ক্ষমতা দেখিয়েছে। তারা অপারেশন কাস্ট লিড ও পিলার অব ডিফেন্স থেকে শিক্ষা নিয়েছে। যোদ্ধারা এবং বেসামরিক লোক মারা গেলেও তাদের কমান্ডাররা সুড়ঙ্গে লুকিয়ে থাকছেন।… তারা ভয়ঙ্কর শত্রু। তারা এসব সুড়ঙ্গে যা করছে তাকে চরম চিত্তাকর্ষক বলেই আমার মনে হয়। গোয়েন্দাদের পক্ষে তাদেরকে সনাক্ত করা কঠিন।’ (more…)

[গাজায় প্রচণ্ড আক্রমণ চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল। নারী, শিশু, বৃদ্ধ কেউ রেহাই পাচ্ছে না ইসরাইলের  হত্যাকান্ড থেকে। তবে শক্তির ভারসাম্যে অনেক পিছিয়ে থাকলেও প্রতিরোধ করে যাচ্ছে গাজাবাসী। এই প্রতিরোধ সংগ্রামে নেতৃত্ব দিচ্ছে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস। দীর্ঘ দিন ধরে গাজার লোকজনকে কঠোর অবরোধের মাধ্যমে তিলে তিলে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করে আসছে ইসরাইল। অবরোধ প্রত্যাহার না করা পর্যন্ত হামাস সংগ্রাম অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে। হামাসের রাজনৈতিক নেতা খালেদ মিশাল গাজায় ইসরাইলি হামলার শুরুতেই মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল-মনিটরকে দৃঢ়ভাবে সে কথাই জানিয়েছেন। ইসরাইলের সামরিক শক্তি অনেক বেশি হলেও তারা হানাদার বাহিনী। আর হামাস লড়ছে মুক্তি সংগ্রামে। তাই ফিলিস্তিনিদেরই জয় নিশ্চিত বলে তিনি বিশ্বাস করেন। তিনি বলেছেন, প্রতিরোধ আন্দোলনের বীরেরা জানে, কিভাবে ইসরাইলকে মোকাবেলা করতে হবে। খালেদ মিশাল এখন কাতারে অবস্থান করছেন। কাতার থেকে নেয়া সাক্ষাতকারটি এখানে প্রকাশ করা হলো। অনুবাদ করেছেন হাসান শরীফ] (more…)

আটককৃত ইসরাইলী সৈন্য শাওল এরন

আটককৃত ইসরাইলী সৈন্য শাওল এরন

জায়নবাদী ইসরাইল কর্তৃক গাজায় একতরফা হামলার ১৩ম দিনে এক ইসরাইলী সেনাকে আটক করেছে ফিলিস্তিনী স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের সামরিক শাখা কাসসাম বিগ্রেড। অন্যদিকে, ইসরাইলী মিডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী এ পর্যন্ত ফিলিস্তিনীদের হাতে ১৮ ইসরাইলী সৈন্য প্রাণ হারিয়েছে।

হামাস টিভির তথ্যমতে, আটককৃত ইসরাইলী সেনার নাম শাওল এরন। ইসরাইলী কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের এক সৈন্যকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। গাজায় ইসরাইলি সেনা আটকের প্রেক্ষিতে আল্লাহু আকবার ধ্বনিতে ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে উল্লাস প্রকাশ করেছে হামাস

বিশ্লেষকদের মতে, এই সৈন্য আটকের ঘটনা হতে পারে গেম চেঞ্জার।কারণ ইসরাইল সেনা আটকের বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখে।

আলজাজিরার সিনিয়র এনালিস্ট মারোয়ান বিশারা আলজাজিরা ব্লগে লিখেছেন, এ সৈন্যকে আটক করারকারণে দুটি প্রতিক্রিয়া হতে পারে। এক, ইসরাইলের পক্ষ থেকে অভিযান জোরদারকরা হতে পারে। আর এরপরেও তাকে না পাওয়া গেলে দুই, নেতানিয়াহু আটককৃত সেসৈন্যকে দ্রুত মুক্তির জন্য যুদ্ধবিরতির দিকে ঝুঁকতে পারেন।

এদিকে ইসরাইলী মিডিয়া জানিয়েছে, হামলা শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত ফিলিস্তিনীদের হাতে ১৮ জন সৈন্য প্রাণ হারিয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০০৫ সালেহামাস গিলাত শালিত নামে এক ইসরাইলী সেনাকেআটক করেছিল।২০১১ সালে ১০৫০ জন ফিলিস্তিনি বন্দী বিনিময়েতাকে মুক্তি দেয়া হয়।

হামাসের আল কাসসাম বিগ্রেডের হাতে ধরা পড়েছে একজন ইসরাইলি সৈন্য। আরও দুই একজনকে ধরতে পারলে বড় কৌশলগত সাফল্য আসত। হামাসের এই সামরিক শাখা নিয়ে একটি রিপোর্ট করেছে ‘দি মিডেল ইস্ট মনিটর‘। রিপোর্টটি অনুবাদ করেছেন জাহিদুল ইসলাম রাজন

85132_1

১৯৯০ সালের আগে হামাসের সামরিক শাখা সবার কাছে অপরিচিত ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে সে বছরে এ সামরিক শাখার কার্যক্রম উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পায়। (more…)

hamasফিলিস্তিনি ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস যোদ্ধাদের হামলায় গাজায় ইহুদিবাদী ইসরাইলের ১৫ সেনা নিহত এবং তিনটি সামরিক যান ধ্বংস হয়েছে।  খবর প্রেস টিভি’র।

হামাসের সামরিক শাখা ইজাদ্দিন আল-কাসসাম এক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, গাজা থেকে সুড়ঙ্গপথে দক্ষিণাঞ্চলীয় ইসরাইলি শহর এশকোলে চালানো অতর্কিত হামলায় ইহুদিবাদী ইসরাইলের ছয় সেনা নিহত হয়েছে।

ইজাদ্দিন আল-কাসসাম বিগ্রেডের ১২ সদস্য নিয়ে গঠিত একটি নির্বাচিত ইউনিট এ হামলা চালিয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া সুড়ঙ্গপথে চালানো অপর দুই হামলায় আরো সাত ইসরাইলি সেনা নিহত হয়েছে।

এছাড়া ফিলিস্তিনি যোদ্ধারা ইসরাইলি এক একটি গাড়ি উড়িয়ে দিলে এক মেজর নিহত হয়। নেগেব মরুভূমির দিমোনা শহরে আরেক ইসরাইলি সেনা নিহত হয়েছে। (more…)